Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌ বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) ও বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম। তবে তা বাতিল করে দিয়েছেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম। কারণ তার জমা দেওয়া তথ্যে নাকি বিস্তর গরমিল। এ নিয়ে আদালতের দারস্থ হয়েছেন স্বঘোষিত হিরো।

একই সঙ্গে আলোচনায় এসেছে হিরো আলমের সম্পত্তির পরিমাণও। কত সম্পত্তির মালিক তিনি? জানতে আগ্রহী সাধারণ নেটজনতা থেকে শুরু করে হিরো আলমের লাখো ভক্ত-অনুরাগী। শোনা যাচ্ছে, মাত্র চার বছরে কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি করেছেন ফেসবুক ও ইউটিউবের এই ভাইরাল তারকা। সেই পরিমাণ জানলে চমকে উঠবেন যে কেউ।

কয়েক বছর আগেও সম্পত্তি বলে তেমন কিছুই ছিল না হিরো আলমের। ব্যাংকে ছিল মাত্র কয়েক হাজার টাকা। সঙ্গে ছিল ৮৭ হাজার টাকা মূল্যের একটি পুরনো মোটরসাইকেল, আড়াই লাখ টাকার আসবাবপত্র এবং স্ত্রীর এক ভরি সোনার গয়না। কিন্তু চার বছরের ব্যবধানে বদলে গেছে সব কিছু।

জানা গেছে, বগুড়ায় ৯ শতক জমি কিনে বাড়ি বানিয়েছেন হিরো আলম। বর্তমানে তার কৃষি জমির পরিমাণ প্রায় ৫০ শতক। স্ত্রীর সোনার গয়নার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ ভরি। ব্যাংকে রয়েছে ৫৫ লাখ টাকা।মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীর হলফনামায় এমন তথ্যই উল্লেখ করেছিলেন হিরো আলম। তার দাবি, এগুলোর কোনোটাই কালো টাকা নয়, সৎ পথে উপার্জিত টাকা। তবে হিরো আলম ঘনিষ্ঠ একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, হলফনামায় যা উল্লেখ করা হয়েছে, হিরো আলমের সম্পত্তি তার থেকে ঢের বেশি।

আপাতত মনোনয়নপত্র বৈধ করার মিশনে নেমেছেন হিরো আলম। এরইমধ্যে তিনি মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার বিপরীতে উচ্চ আদালতে আপিল করেছেন। তার বিশ্বাস, তিনি নির্বাচনে লড়াই করার সুযোগ পাবেন।এর আগে ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন হিরো আলম। সেবার তিনি বগুড়া-৪ আসন থেকে প্রথমে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন কিনেছিলেন। না পেয়ে পরে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলেন। তখনও প্রাথমিক অবস্থায় হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছিল। পরে উচ্চ আদালতে আপিল করে ফিরে পেয়েছিলেন। যদিও ভোট জিততে পারেননি।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১১ জানুয়ারি ২০২৩ /এমএম