Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌  কিছুদিন ধরে গুঞ্জন, ওপার বাংলার পরিচালক সৃজিত মুখার্জীর সঙ্গে বাংলাদেশি অভিনেত্রী রাফিয়াত রশীদ মিথিলার সংসার ভাঙতে বসেছে। সম্প্রতি ফেসবুকে দুই তারকার দেওয়া দুটি আলাদা পোস্ট এমন গুঞ্জনকে উস্কে দেয়। তারই মাঝে স্বামী সৃজিতকে নিয়ে আদুরে বার্তা দিলেন মিথিলা।গায়ক-অভিনেতা তাহসান রহমানের সাবেক স্ত্রী মিথিলা বললেন, কলকাতায় সৃজিত বাড়ি না থাকলে তার নাকি একদম ফাঁকা ফাঁকা লাগে।

এ মাসের শুরুতে হঠাৎই রটে যায়, ভাঙন ধরেছে সৃজিত-মিথিলার সম্পর্কে। এর নেপথ্যে ছিল দুজনের দুটি পোস্ট। মিথিলা লিখেছিলেন, ‘কীভাবে জানো তুমি যে প্রেম সত্যি? কীভাবে জানো এই প্রেম ন্যায্য? উত্তর পেতে কতদূর যেতে পারবে তুমি জানার আগে যে সেটা সেখানে নেই?’একইদিনে সৃজিত জোন বায়েজের লেখা ফেয়ারওয়েল অ্যাঞ্জেলিনা গানের লাইন কোট করে লিখেছিলেন, ‘এখানে রাগের কিছু নেই, দোষারোপের প্রয়োজন নেই, কিছু প্রমাণ করার নেই। সব একই আছে। শুধু একটা গাছ একাকী দাঁড়িয়ে আছে সৈকতে। সমুদ্রের ধার ঘেঁষে। বিদায় অ্যাঞ্জেলিনা। আকাশ কাঁপছে। এবার বিদায় নিতে হবে।’

ব্যস, এই পোস্ট দুটি প্রকাশ হওয়ার পরই দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে, সৃজিত-মিথিলার ঘর ভাঙছে। এ নিয়ে ইতোমধ্যে কথা বলেছেন মিথিলা। জানিয়েছেন তাদের দুজনের করা পোস্ট থেকে যে এরকম কিছু রটবে তা তিনি স্বপ্নেও ভাবেননি। এমনকি বিষয়টাকে ‘অনৈতিক’ও বলেছিলেন।এবার মিথিলা বললেন, ‘যখন আমি কলকাতা আসি, সৃজিতকে ছাড়া বাড়িটা একদম ফাঁকা ফাঁকা লাগে। সুতরাং এই সব কথায় কান দেওয়ার কোনো সময়ই আমার নেই।’

আসলে, এই বছরটা সৃজিত-মিথিলা দুজনেরই বাইরে বাইরে কেটেছে। সৃজিত বেশিটা সময় ছিলেন মুম্বাইতে। মিথিলা বাংলাদেশ-আফ্রিকা যাতায়াত করেছেন নিজের কাজে। মিথিলার জানান, তিনি কিছু বন্ধুর ফোন আর মেসেজের মাধ্যমে তাদের বিচ্ছেদের গুঞ্জন সম্পর্কে জানতে পারেন।ফেসবুকে দুজনের দেওয়া আলাদা দুটি পোস্ট সম্পর্কে মিথিলার বক্তব্য, ‘আমার মনে হয়েছিল ফটোশুটের ছবির সঙ্গে ওই গানটাই ভালো যাবে। আর সৃজিত যেটা দিয়েছে বব ডিলানের এই গানটা তো আমাদের দুজনেরই প্রিয়।’

২০১৯ সালের ৬ ডিসেম্বর সৃজিতকে ভালোবেসে বিয়ে করেন মিথিলা। এটি তার দ্বিতীয় বিয়ে। ২০০৬ সালের ৩ আগস্ট অভিনেত্রী প্রথমে বিয়ে করেন তাহসান রহমানকে। ২০১৩ সালের ৩০ এপ্রিল তাদের সংসারে আসে মেয়ে আইরা। ২০১৭ সালের জুলাইয়ে ডিভোর্স হয় তাহসান-মিথিলার।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ২২ নভেম্বর ২০২২ /এমএম