Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক :: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ব্যাপকভাবে আক্রান্ত হচ্ছে দেশের বিনোদন জগত। একের পর এক তারকারা আক্রান্ত হচ্ছেন মহামারি এই ভাইরাসে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে রবিবার ভোরে মারা গেছেন বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী মিতা হক। নতুন খবর, লালনশিল্পী ফরিদা পারভীনেরও করোনা পজিটিভ।

গণমাধ্যমকে এই খবর জানিয়েছেন ফরিদা পারভীনের ছেলে ইমাম জাফর নোমানী। তিনি বলেন, ‘তিন- চারদিন ধরে অসুস্থ বোধ করছিলেন আম্মু। ৭ এপ্রিল করোনা পরীক্ষা করালে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তবে আম্মুর তেমন শারীরিক সমস্যা নেই। শুধু কিছুটা শ্বাসকষ্ট আছে। আম্মুর জন্য সবাই দোয়া করবেন।’ফরিদা পারভীন আপাতত বাসায় আইসোলেশনে থেকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিচ্ছেন বলেও জানান তার ছেলে।

জনপ্রিয় এই শিল্পী মূলত পল্লীগীতি গেয়ে থাকেন। বিশেষ করে তিনি লালন সংগীতের জন্য ব্যাপক জনপ্রিয়। ১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর তার জন্ম নাটোরে হলেও বড় হয়েছেন কুষ্টিয়ায়। ১৯৬৮ সালে তিনি রাজশাহী বেতারে নজরুল সংগীতের জন্য নির্বাচিত হন। নজরুলগীতি দিয়ে শুরু করলেও তিনি পরবর্তীতে দেশাত্মবোধক গেয়ে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেন।

এই কণ্ঠশিল্পীর জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘এই পদ্মা, এই মেঘনা, এই যমুনা-সুরমা নদীর তটে’ ‘তোমরা ভুলেই গেছো মল্লিকাদির নাম’, ‘নিন্দার কাঁটা যদি না বিঁধিল গায়ে প্রেমের কী সাধ আছে বলো’, ‘খাঁচার ভিতর’, ‘বাড়ির কাছে আরশি নগর’ ইত্যাদি।

সংগীতাঙ্গনে বিশেষ অবদানের জন্য ১৯৮৭ সালে ফরিদা পারভীনকে একুশে পদক দেওয়া হয়। ২০০৮ সালে তিনি জাপান সরকারের পক্ষ থেকে পান ‘ফুকুওয়াকা এশিয়ান কালচার’ পুরস্কার। এছাড়া সেরা প্লেব্যাক গায়িকা হিসেবে ১৯৯৩ সালে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও লাভ করেন।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১২  এপ্রিল ২০২১ /এমএম