Menu

রহমান মৃধা, সুইডেন থেকে

মুরব্বিদের কথা হলো
যত তাড়াতাড়ি পার
লক্ষ্যমাত্রা ধার্য কর।

সব কিছু ছেড়ে দিয়ে
লক্ষ্যমাত্রা জয় করে,
লক্ষ্যে পৌঁছে দেখি
কষ্টের শেষ হয়েছে,
সুখ এসে হাজির হয়েছে।

কৈশোরে যা মন চেয়েছে,
বার্ধক্যে তা পাওয়া গেছে।
জোয়ার এসে চলে গেছে,
যৌবনে ভাটা লেগেছে।
এ আমার কী হলো?
অসময়ে সব এলো।
তারপরও কেমনে বলো,
সব ভালো যার শেষ ভালো?

স্মৃতির জানালা খুলে,
দেখছি আমি এক মনে।
এত কিছু থাকতে কেন,
বেছে নিলাম এ জীবন!

সব কিছু ত্যাগ করে,
এত বছর পার করে
কী লাভ হলো মোর লক্ষ্যে পৌঁছে?

ইচ্ছে করেনা মোর
কোনো কিছু করিতে,
সুযোগ এসেছে বটে
তবে খুব দেরিতে।

কী হবে এসব দিয়ে
মন যদি না চেলো!
তারপরও কেমনে বলো,
সব ভালো যার শেষ ভালো?

শিশুকাল ছিলো ভালো,
বুদ্ধি আক্কেল কম ছিল,
যৌবনের কাজগুলো,
করতে সমাজ বাধা দিলো।

মনের ওপর চাপ দিয়ে,
ভয়ভীতি সব দেখিয়ে,
ঠেলে দিল শেষ জীবনে,
ভবিষ্যতের চিন্তা করে।

সাধ-আহল্লাদ ফেলে রেখে,
হৃদয়টাকে শূন্য করে
লোকালয়ে হাজির হয়ে,
সবার মন জয় করা হলো।

সবাই তখন খুশি হলো,
সব ভালো যার শেষ ভালো।
শেষ ভালো তো সব ভালো,
এ কেমন কথা হলো?
ঘটনাটি কেমন হলো,
সবাই একটু ভেবে বলো!
কী করে সব হলো ভালো,
সময় যখন ফুরিয়ে গেল।

সকালের কাজ বিকেলে হলো,
তারপরও কেমনে বলো,
সব ভালো যার শেষ ভালো?

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ /এমএম