Menu

আহসান রাজীব বুলবুল, প্রধান সম্পাদক, প্রবাস বাংলা ভয়েস  ::‌ দেশের স্বনামধন্য নাট্য সংগঠন নাট্যচক্র তাদের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে যাচ্ছে আগামী ১০ আগস্ট ।এ উপলক্ষ্যে শিল্পকলা একাডেমির ট্রেনিং রুমে আলোচনা সভা ও নাট্যচক্রের নবীন ও প্রবীণ সদস্যদের এক মিলন মেলার আয়োজন করা হয়।

মিলন মেলায় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি ম.হামিদ , অধ্যাপক আব্দুস সেলিম, ফাল্গুনী হামিদ, দেব প্রসাদ দেবনাথ, মোখলেছুর রহমান টুলু, আউয়াল চৌধুরী, আফরোজা চৌধুরী রত্না , রবিউল মাহমুদ ইয়ং, মিলি মুন্সী, সামসুদ্দীন হায়দার ডালিম , তনিমা হামিদ, রিমা, খুশি, রবিন, পলাশ, চঞ্চল, রানা, আসিফ, সাইফুল ইসলাম মান্নু, মুরাদ পারভেজ, সঞ্জিত সরকার, নাসরীন, সাথী,মাহমুদা শিউলি , ইলিয়াস , পরিমল, নাসিরুদ্দিন মাসুদ সহ আরো অনেকে।

উল্লেখ্য ১৯৭২ সালের ১০ আগস্ট একদল তরুণ, নবীন, উদ্যম ও প্রতিভাবানদের নিয়ে নাট্যচক্র প্রতিষ্ঠিত হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ‘নাট্যচক্র’ বাংলাদেশের অন্যতম প্রথম নাট্যদল যা এ দেশের নাট্যকর্মীদের জন্য বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেছে।সংগঠনের জন্মলগ্ন থেকে এখন পর্যন্ত নাট্যচক্র দেশের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে।

মিলন মেলায় নাট্যচক্রের সভাপতি, বিটিভি ও এফডিসি সাবেক মহাপরিচালক এবং বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাবেক চেয়ারম্যান নাট্যজন ম. হামিদ বলেন, করোনা মহামারীর কারনে আমাদের অনেক কার্যক্রম স্থবির ছিল, নতুন করে জেগে উঠা পৃথিবীতে আশা করি আমরা আবার কাজ শুরু করতে পারব। মিলন মেলায় তিনি নাট্যচক্রের বর্তমান ও অতীতের সকল সদস্য ও শুভানুধ্যায়ীদেরকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান এবং ৫০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পরিকল্পনা তুলে ধরেন। অতীতের মতো আগামীর পথচলায় সহযাত্রীরা সকলেই সঙ্গে থাকবেন এমনটাও তিনি প্রত্যাশা করেন।

নাট্যচক্রের সহ-সভাপতি বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সাবেক পরিচালক ও চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ও বিশিষ্ট নাট্যজন ফাল্গুনী হামিদ বলেন, বিগত দুই বছরের করোনা মহামারীতে আমরা অনেকেই স্বজনদের হারিয়েছি।এই সংকটকালে অনন্তলোকে হারিয়ে গেছেন বেশ ক’জন গুণী সংস্কৃতিসেবীসহ অনেক প্রিয় মুখ।সকলের আত্মার শান্তি কামনা করছি। সেই সাথে আমরা নতুন নতুন কাজ নিয়ে আবার মঞ্চে একত্রিত হতে পারব এমনটাই প্রত্যাশা করছি। এছাড়াও তিনি ৫০ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দলের কর্মীদের একত্রিত হবারও আহ্বান জানান।

অধ্যাপক আব্দুস সেলিম বলেন, অনেক দিন পর সবাই একত্রিত হতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। সত্যিই এক কঠিন সময় আমরা অতিক্রম করেছি। এখন নতুন করে আমাদের সামনের দিনগুলোতে নতুন নতুন কাজ নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।বিশিষ্ট নাট্যজন ও নাট্য নির্দেশক দেবপ্রসাদ দেবনাথ বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত যে দীর্ঘ পথ পেরিয়ে নাট্যচক্র পঞ্চাশ বছরে পদার্পণ করতে যাচ্ছে। এই সুদীর্ঘ সময়ে আমরা আমাদের দলের অনেক গুণীজনদের হারিয়েছি যা পূরণ হবার নয়। ৫০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর পরিকল্পনার বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন তিনি।

উল্লেখ্য নাট্যচক্র সত্তর দশক থেকে আজ অবধি তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করেছে। নাট্যচক্রের উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে- একা এক নারী, এক্সপ্লোসিভ ও মূল সমস্যা, জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন, সংবাদ শেষাংশ, নবান্ন, প্রত্যাবর্তনের দেশে, স্পার্টাকাস, রাজা অনুস্বরের পালা, চক সার্কেল, দোররা, প্রতীক্ষার প্রহর, লেট দেয়ার বি লাইট, জনক, হোজা নাসিরুদ্দিন, চানমিয়ার বাইস্কোপ এবং সর্বাধিক প্রদর্শিত ও প্রশংসিত জনপ্রিয় নাটক ভদ্দরনোক।নাট্যচক্র‌ ১৯৭৭ সালে ‘নাট্য শিক্ষাঙ্গন’ নামে এক বছরের সার্টিফিকেট কোর্সের প্রথম উদ্যোগ নেয়। এই কোর্সের অধ্যক্ষ ছিলেন অধ্যাপক কবীর চৌধুরী।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ০৫ জুন  ২০২২ /এমএম