Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌ চলছে তথ্যপ্রযুক্তি যুগ। সময়টা যেকোনো মিডিয়ার জন্য অনেক চ্যালেঞ্জের। বর্তমানে মিডিয়াকে নানা চ্যালেঞ্জের মধ্য দিয়ে কঠিন সময় পার করতে হচ্ছে। তবে জাগরণ আইপি টিভি এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে দর্শকদের নতুন কিছু উপহার দেবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে জাগরণ আইপি টিভি এগিয়ে যাবে। জাগরণ টিভির জাগরণ হোক, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ নিয়ে। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় নিরপেক্ষতা বজায় রেখে, জনগণের প্রত্যাশা পূরণের মাধ্যমে যুগের পর যুগ টিকে থাকবে। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।শনিবার বিকালে রাজধানীর বাংলামটরে অবস্থিত পদ্মা লাইফ টাওয়ারে জাগরণ টিভির (আইপি টিভি) নিবন্ধন প্রাপ্তি উপলক্ষে আয়োজিত আনন্দ আয়োজনে উপস্থিত হয়ে এসব কথা বলেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।

আনন্দ আয়োজনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেন, আমরা সবসময় বলে থাকি সংবাদ মাধ্যম হচ্ছে সমাজের দর্পণ। সেই দর্পণের মূল কাজ করে থাকেন সাংবাদিকরা। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ বলে আসলে কিছু নেই। একই সংবাদ একজনের কাছে ন্যায্য, অন্যজনের কাছে অন্যায্য মনে হতে পারে। এই ন্যায্যতা প্রমাণ করবে আদালত। কিন্তু মিডিয়ার কাজ হচ্ছে কীভাবে ঘটনা ঘটেছে সঠিকভাবে সেটা তুলে ধরা।

তিনি আরও বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করি, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার, এটা নিয়ে আমরা কখনো আপোষ করি না। কিন্তু চিন্তার বিষয় হচ্ছে, দেশে উগ্র মৌলবাদীদের উত্থান, যা দেশের জন্য একটি হুমকিস্বরূপ। কিছুদিন পর পর ওয়াজ মাহফিলের নামে ধর্মের সঠিক ব্যাখ্যা না করে, রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ধর্মকে ব্যবহার করছে। মানুষকে তারা প্রভাবিত করে উগ্রতা ও অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। গণমাধ্যম তো বটেই, আমাদের সবার যার যার জায়গা থেকে এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) ড. মুহাম্মদ সামাদ বলেন, জাগরণ নামটা অনেক সুন্দর। জাগরণ টিভি বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরবে। দেশ ও দেশের বাইরে বাঙালি যারা আছে তাদের কথা তুলে ধরবে। বঙ্গবন্ধুর জীবন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তুলে ধরবে। দেশকে বড় করে তুলে ধরবে। দেশে একটা জাগরণ আনবে। এই প্রত্যাশা করি।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমান বলেন, বিবার্তা২৪ ডটনেটের সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসি ও জাগরণ টিভির প্রধান সম্পাদক এফএম শাহীনের কর্মকাণ্ড যখন দেখি তখন মনে হয় সত্যকে দেখছি, সুন্দরকে দেখছি, সৃজনশীলতাকে দেখছি। সমাজে এসবের বড্ড অভাব। যখন কোনো কিছুতে জঞ্জাল, সুন্দরের মধ্যে প্রতিবন্ধকতা আঘাত হানে, হাসি কলম তুলে নেয়। প্রতিবন্ধকতা এড়িয়ে এভাবে কলম তুলে নেয়া আমার মনে হয় আধুনিক সময়ে এটি বড় জরুরি। তারা যেমন আধুনিক, ঠিক একই সময়ে বিপ্লবী। তাদের এই যাত্রা অব্যাহত থাকুক। নতুন কোনো জঞ্জাল যেন জাগরণকে অস্তব্ধ না করে দিতে পারে। অনেক সুন্দর, শুভযাত্রা এদেশে হয়। সুন্দরকে স্তব্ধ করে দেয়ার, প্রতিবন্ধকতা তৈরির চেষ্টা ঘটে। আমাদের বহু সুন্দর অর্জন এভাবে নষ্ট করে দেয়া হয়েছে। আমাদের সব সুন্দরের শ্রেষ্ঠ সময়কে নষ্ট করে দেয়া হয়েছে ১৫ আগস্ট দিয়ে। জাগরণ যেন সবসময় সজাগ থাকে। আমরা যেন সেসব কালো থাবা থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখতে, সংঘবদ্ধ রাখতে পারি।

অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ও জাগরণ আইপি টিভির প্রধান সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশের চেতনায় জাগরণ আইপি টিভি কখনো আপোষ করবে না। বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ করা আমাদের মূল লক্ষ্য।এসময় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী বলেন, চলমান দুর্বল গণতন্ত্রে একটি মিডিয়ার উপস্থিতি দুরূহ ব্যাপার। যারা যারা বহুদলীয় গণতন্ত্র ও বাকস্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন তাদের জন্য এই নতুন টেলিভিশন (জাগরণ টিভি) আনন্দদায়ক হবে। আমাদের সামনে আরো কঠিন সময়। আমাদের এ পথ অতিক্রম করতে হবে। এই পথ অতিক্রমে এই জাগরণ টিভি আমাদের সাহস যোগাবে। এই টেলিভিশন নিরপেক্ষতা বজায় রেখে, জনগণের প্রত্যাশা পূরণের মাধ্যমে যুগের পর যুগ টিকে থাকবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

নাটোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জাতীয় সংসদ সদস্য আবদুল কুদ্দুস এমপি বলেন, সমাজের দর্পণ হচ্ছে গণমাধ্যম। জাগরণ আইপি টিভির লক্ষ্য হচ্ছে বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে জাগরণ আইপি টিভি এগিয়ে যাবে। জাগরণ টিভির জাগরণ হোক মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ নিয়ে।

কর কমিশনার আছাদুজ্জামান আছাদ বলেন, সাহসিকতা ও বলিষ্ঠতার পরিচয় দিয়ে জাগরণ আইপি টিভি এগিয়ে যাবে। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ করে দেশ ও মানুষের কথা বলবে এটাই প্রত্যাশা করি।জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী সাইফুদ্দিন মিলন বলেন, দেশের প্রয়োজনে জাগরণ টিভি যাতে জেগে থাকবে এ প্রত্যাশা রইলো।নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে কাজ করবে জাগরণ আইপি টিভি। জাগরণ টিভি জাগরণ করবে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সানজিদা খানম বলেন, ন্যায্য শব্দটা আমাদের কাছে স্পষ্ট করতে হবে। বাংলাদেশের অস্তিত্ব নিয়ে যেটা ন্যায্য, আদর্শ সাংবাদিকদের কাছে যেটা ন্যায্য সেটা নিয়ে কাজ করতে হবে। মানুষের কল্যাণে কাজ করবে জাগরণ আইপি টিভি। এই প্রত্যাশা রইলো।আওয়ামী যুব মহিলা লীগের সহ সভাপতি কুহেলী কুদ্দুস মুক্তি বলেন, বিবার্তা, জাগরণ আমাদের কাছে পরিবারের মতো। আমি আশা করি, জাগরণ আইপিটিভি সৎ, নিষ্ঠা ও সততার সাথে অনেক দূর এগিয়ে যাবে।জাগরণ টিভির প্রধান সম্পাদক এফএম শাহীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ আনন্দ আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের, দলটির

অতিরিক্ত মহাসচিব সাহিদুর রহমান টেপা, বিএনপির সহ দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু, জিটিভি’র প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান, গৌরব’৭১ এর সভাপতি এসএম মনিরুল ইসলাম মনি, বিবার্তা২৪ডটনেটের সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসি, আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য শাহরিয়ার কবির বিদ্যুৎ, ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বরিকুল ইসলাম বাঁধন, ছাত্রদলের কেন্দ্রিয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল প্রমুখ।উল্লেখ্য, সোমবার (৮ নভেম্বর) প্রথম পর্যায়ে ১৪টি ইন্টারনেট প্রটোকল টেলিভিশনকে (আইপি টিভি) শর্তসাপেক্ষে নিবন্ধনের অনুমতি দিয়েছে সরকার। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। নিবন্ধনের অনুমতি পাওয়া আইপি টিভিগুলোর তালিকার দুই নম্বরে রয়েছে জাগরণ টিভির নাম।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১৪ নভেম্বর  ২০২১ /এমএম