Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌ ইটকাঠের শহরে সবুজ প্রকৃতি যেন অধরা। সবুজের সান্নিধ্য পেতে অনেকেই বারান্দায় বিভিন্ন রকমের গাছে লাগিয়ে থাকেন। রঙিন টব এবং তাতে গাছ লাগিয়ে সবুজের ছোঁয়া পেতে চান তারা। আপনিও যদি সেই দলের হয়ে থাকেন তাহলে ফ্ল্যাটের বারান্দায় গড়ে তুলতে পারেন এক টুকরো সবুজ বাগান। যেখানে আরাম কেদারায় বসে অবসরের সময়টুকু কাটিয়ে দেওয়া যায় এক কাপ চায়ের সাথে।

বারান্দায় বাগান করতে গেলে যে সমস্যাটি দেখা যায়, সেটা হলো পর্যাপ্ত আলো-বাতাসের অভাব। পাশাপাশি একের পর এক বাড়ি থাকায় রোদ আসে না অনেক বারান্দায়। পছন্দের গাছ নার্সারি থেকে কিনে এনে বারান্দায় রাখলেই যে তা জলজ্যান্ত থাকবে এমনটা ভাবার কোনো কারণ নেই। তাই বারান্দায় গাছ লাগানোর আগে জেনে নিন কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বিষয়।

১.প্রথমে দেখে নিন আপনার বারান্দায় ঠিক কোন সময়টাতে কতক্ষণ রোদ থাকে। যদি দিনের শুরুতে পূর্ব দিকের রোদ আপনার বারান্দায় এসে পড়ে, তাহলে নিশ্চিন্তভাবে ফুল গাছ লাগানোর সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। এমনকি যদি শেষ বেলায় পশ্চিমের রোদ ঢোকে সেক্ষেত্রেও ফুল গাছ লাগাতে পারেন।

২.রাস্তার ধারে ফ্ল্যাট বা বাড়ি হলে কিংবা বাড়ির পাশে নির্মাণের কাজ চলতে থাকলে, প্রথমে আগলে রাখুন নিজের বারান্দাকে। কারণ বাগানের জন্য সবচেয়ে বড় শত্রু হলো এই ধুলাবালি।

৩.বারান্দায় লাল-নীল-হলুদ-সবুজ ফুটে থাকলে দেখতে খুবই সুন্দর লাগে। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন নিয়মিত বাগান করার ধৈর্য। এর পাশাপাশি দরকার রোদ-ছায়া-পানি এবং নানা রকমের যত্নআত্তি। আর তা না হলে বারান্দার গাছগুলো কিন্তু শুকনা কাঠ হয়ে থাকবে।

৪.বারান্দায় রোদ প্রবেশ করলে গোলাপ, অর্কিড, বেলি, টগর, অপরাজিতা, জুঁই, দোলনচাঁপা ফুলের গাছ লাগাতে পারেন। আর যদি রোদ না আসে তাহলে নানা ধরনের পাতাবাহার গাছ দিয়ে সাজিয়ে তুলতে পারেন আপনার ছোট্ট বারান্দা। এক্ষেত্রে এরিকা পাম, মানিপ্লান্ট গাছ লাগাতে পারেন।

৫.প্রতিদিন নিয়ম করে সকাল-বিকালে গাছে পানি দিতে হবে। মনে রাখবেন, যখন খুব কড়া রোদ ওঠে তখন পানি দেওয়া যাবে না। যদি দেখেন আপনার টবের মাটি ভিজে আছে, তাহলে পানি দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। পানি দিতে দিতে টবের মাটি যদি শক্ত হয়ে আসে তাহলে টবের মাটি কিছুটা আলাগা করে নিতে হবে।

৬.তিন মাস অন্তর অন্তর সার দেবেন গাছের গোড়ায়। পাতা জাতীয় গাছগুলোতে মাঝে মাঝে রোগ জীবাণু আক্রমণ করে ফলে পাতা কুঁকড়ে যায়। সেক্ষেত্রে কুঁকড়ে যাওয়া পাতাগুলো কেটে ফেললে ভালো। মাঝে মাঝে কীটনাশক দিতে পারেন।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১৯  জুলাই ২০২১ /এমএম