Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌ সারা বিশ্বের পুরুষদের কাছে পকেট মানি বহন করার একটি জনপ্রিয় মাধ্যম মানিব্যাগ। সেই মানিব্যাগে ব্যবসায়ী এবং কর্মজীবীরা টাকা ছাড়াও রাখেন এটিএম কার্ড, ভিজিটিং কার্ডসহ প্রয়োজনীয় নানা কাগজপত্র। এতে মানব্যাগটি হয়ে যায় মোটা এবং ভারী। এরপর পুরুষরা সেটি যত্ন করে রাখেন প্যান্টের পেছনের পকেটে।

এটি খুবই স্বাভাবিক একটি বিষয়। তাই এই অভ্যাস নিয়ে আলাদা করে কেউ কিছু ভাবেন না। কিন্তু চিকিৎসকরা এই অভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসতে বলছেন। কারণ মানুষের ভীড়ে বস্তুটি খোয়া যাওয়া ছাড়াও আপনার শখের মানিব্যাগটি ডেকে আনতে পারে মারাত্মক শারীরিক বিপদ।

‘আমেরিকান ইনস্টিটিউট অব হেল্‌থ সায়েন্স’-এর গবেষকরা বলছেন, দিনের পর দিন এভাবে মানিব্যাগ রাখলে কোমরে ব্যথা, হাড়ের সমস্যা এবং স্নায়ুর সমস্যা দেখা দিতে পারে। হাড় এবং স্নায়ুর অসুখ নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে গবেষণা চালিয়ে এমনটাই আশঙ্কা করছেন ওই গবেষকরা। এছাড়া ছেলেদের হাড়ের সমস্যা, পায়ে, কোমরে যন্ত্রণার জন্য পেছনের পকেটে মানিব্যাগ রাখাকেই দায়ী করছেন চিকিৎসকরা।

অনেকে মানিব্যাগে খুচরা পয়সাও রাখেন। তাতে জিনিসটি আরও বেশি ভারী হয়ে যায়। সেই ভারী ব্যাগ নিয়েই হাঁটাচলা, ট্রেনে-বাসে যাতায়াত সবই চলে।চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, প্যান্টের পেছনে যেখানে পকেটটি রয়েছে, সেখানেই আসলে সায়াটিক স্নায়ুর অবস্থান। দীর্ঘ সময় এই ভাবে মানিব্যাগ রাখার ফলে সায়াটিক স্নায়ু এবং সংশ্লিষ্ট পেশির উপর প্রবল চাপ পড়ে। ফিমার হাড়ের মাথাতেও চাপ পড়ে। এতেই কোমরে ব্যথা ও হাড়ের সমস্যা দেখা দেয়।

পেছনের পকেটে মানিব্যাগ রেখে দেওয়ায় সায়াটিক নার্ভের নীচে থাকা কোষে চাপ পড়ে। এতে কোমরে ব্যথা তো হয়ই, কারও কারও ক্ষেত্রে পা অবশ হয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে ক্ষয় হয় হাড়েরও। দীর্ঘ দিন এভাবে চলতে থাকলে পক্ষাঘাতগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কাও থাকে। তাই সাবধানতা এবং সচেতনতা দুটোই খুব জরুরি।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ /এমএম