Menu

প্রবাস বাংলা ভয়েস ডেস্ক ::‌ সাময়িক সনদের মেয়াদ উত্তীর্ণ এবং স্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম স্থানান্তরিত হতে ব্যর্থ ১৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

এর মধ্যে চারটি বিশ্ববিদ্যালয় সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে পারবে না। দুই বিশ্ববিদ্যালয়কে তাদের অস্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। আর নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ১২টি বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

ইউজিসির জনসংযোগ ও তথ্য অধিকার বিভাগের পরিচালক ড. শামসুল আরেফিনের বৃহস্পতিবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।গণবিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, যে চার বিশ্ববিদ্যালয় সব প্রোগ্রামে শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে পারবে না, সেগুলি হলো—প্রাইম এশিয়া ইউনিভার্সিটি, স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ, আশা ইউনিভার্সিটি ও ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি।

এসব বিশ্ববিদ্যালয় নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে সব কার্যক্রম স্থানান্তর ও ক্যাম্পাস নির্মাণে দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে ইউজিসি।যে দুটি বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়ে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে, সেগুলি হলো—স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ এবং মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। তবে এ দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে পরিচালিত প্রোগ্রামসমূহ যথারীতি চালু থাকবে বলে গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

এছাড়া স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থানান্তরে চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত সময় পেয়েছে ৬টি বিশ্ববিদ্যালয়। সেগুলি হলো—ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, রয়েল ইউনিভার্সিটি, সাউথইস্ট ইউনিভার্সিটি, সিটি ইউনিভার্সিটি, দ্য মিলেনিয়াম ইউনিভার্সিটি ও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি।আর চলতি বছরে জুন মাস পর্যন্ত সময় পেয়েছে ৬টি বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো—ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অল্টারনেটিভ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি, উত্তরা ইউনিভার্সিটি, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি এবং দ্য পিপলস ইউনিভার্সিটি।

নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে না পারলে এই বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অস্থায়ী ক্যাম্পাস বা ভবনগুলো অবৈধ হবে বলে গণবিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।গণবিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষা কার্যক্রমসহ সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থানান্তরে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের সব প্রোগ্রামে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ থাকবে। একই সঙ্গে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাস ছাড়া সব অস্থায়ী ক্যাম্পাস বা ভবনগুলো অবৈধ বিবেচিত হবে।উল্রেখ্য, বর্তমানে দেশে ১০৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে ১০২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩ লাখ ১০ হাজার ১০৭ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত বলে ২০২১ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে জানিয়েছে ইউজিসি।

প্রবাস বাংলা ভয়েস/ঢাকা/ ১৯ জানুয়ারি ২০২৩ /এমএম